আগস্ট মাসে আওয়ামী লীগের নেতাদের বুদ্ধি বেড়ে যায়

আগস্ট মাস আসলে, আওয়ামী লীগের সবার শোক ও বুদ্ধি বেড়ে যায়; সবাই বলতে থাকে, কে কে শেখ সাহেবকে হত্যা করেছে; এখন সবার থেকে বড় বুদ্ধিমান হলো শেখ সেলিম, উনি এক নিশ্বাসে সবার নাম বলে যায়, জিয়া, শফি উল্লাহ, মোস্তাক, খালেদ মোশারফ, জাসদ, ন্যাপ; লিস্ট লম্বা হতে থাকে। ১৯৭৫ সালে, এসব বুদ্ধিমানরা সবাই চুপ ছিল;সময়ের সাথে সবার গলা উঁচু হয়ে চলছে। আগামী আগস্টে লিস্টে হয়তো নতুন নাম আসবে।
আমু, হানিফ, তোফায়েল, নাসিম, সবাই বলতে থাকে, লিস্ট দিতে থাকে; গত কিছু আগস্টে মেনন, মতিয়া, ইনু, বাদলরাও এ সময় লিস্ট দেয়া শুরু করেছিল; এ বছর উনারা চুপ; কারণ, হঠাৎ করে, জাসদ, ন্যাপের নাম যুক্ত হয়ে গেছে লিস্টে; তাই উনারা চুপ হয়ে গেছেন; হয়তো আগস্টের পরে উনারা মুখ খুলবেন।
আওয়ামী লীগের সবাই বলে, কে কে শেখ সাহেবকে হত্যা করেছে; তবে, কেহ বলতে চাহে না, পেছনে কি বৃহৎ কারণ ছিল। তারা কারনটা মোটেই বলে না, এর কারণ কি?
শেখ সাহেবকে যারা মেরে থাকুক, সবাইকে পরিচালনা করেছে সিআইএ; আওয়ামী লীগ এ নামটা মুখে আনে না; এবং আও্যামী লীগ জানে যে, একমাত্র “বাকশাল”এর জন্য শেখ সাহেবকে প্রাণ দিতে হয়েছিল।
সিআইএ “বাকশাল” চায়নি, আও্যামী লীগের রাজ্জাক ব্যতিত কেহ “বাকশাল” চাহেনি, আজও চাহে না; তাই তারা শেখ সাহেবের মৃত্যুর পেছনে পাতি মাতিদের নাম আনে, বড় নেতার নাম নেয় না; শেখ সাহেবের মৃত্যুর কারণ ভুলেও মুখ আনে না।